বাংলাদেশী শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা দিল ব্রিটিশ হাইকমিশন

u1ডেস্ক ::ব্রিটেনে শিক্ষাক্ষেত্রে তারা একের পর এক তাক লাগানো ফলাফল করে যাচ্ছে ব্রিটিশ প্রবাসী বাংলাদেশী শিক্ষার্থীরা। গতকাল শনিবার যুক্তরাজ্যের বাংলাদেশ হাইকমিশনের উদ্যোগে বিগত কয়েক বছরের ন্যায় এবারো তাদের সংবর্ধনা প্রদান করায়। এতে করে যুক্তরাজ্যের বাঙালি শিক্ষার্থীদের একত্রে সাফল্য উদযাপনের বিশাল সুযোগ বলেন মনে করে যুক্তরাজ্যস্থ বাংলাদেশ হাই কমিশনার আব্দুল হান্নান।

২০১৫ সালের জিসিএসই (মাধ্যমিক সমমান) ও এ লেভেল (উচ্চ মাধ্যমিক সমমান) পরীক্ষায় অসাধারণ ফলাফল করা ১২৭ জন শিক্ষার্থীর হাতে সনদ ও ক্রেস্ট তুলে দেওয়া হয় ওই অনুষ্ঠানে।

জিসিএসই পরীক্ষায় কমপক্ষে ১০টি বিষয়ে এ স্টার বা এ পেয়ে উত্তীর্ণ হয়েছে এবং এ লেভেল পরীক্ষায় কমপক্ষে তিনটি এ বা এ স্টার পেয়ে উত্তীর্ণ হয়েছে—এমন শিক্ষার্থীদের অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ জানানো হয়।

অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, বাংলাদেশি-অধ্যুষিত পূর্ব লন্ডনের স্কুলগুলোই সেরাদের তালিকায় নাম লিখিয়েছে। বাঙালি শিক্ষার্থীরা দেখিয়েছে, ইচ্ছা ও একাগ্রতা থাকলে কোনো বাধাই সাফল্যকে দমিয়ে রাখতে পারে না।

লন্ডনের ক্যানসিংটন টাউন হল মিলনায়তনে ওই অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন বাংলাদেশের হাইকমিশনার এম এ হান্নান, যুক্তরাজ্যের বৈদেশিক উন্নয়ন দপ্তরের (ডিএফআইডি) প্রতিমন্ত্রী ডেসমন্ড সোয়েন, আন্ডার সেক্রেটারি অব স্টেট ব্যারনেস ভার্মা। আরও বক্তব্য দেন লর্ড শেখ, পল স্কালি এমপি, ইউরোপিয়ান পার্লামেন্ট সদস্য জিন লেম্বার্ট, প্রবীণ সাংবাদিক ও কলামিস্ট আব্দুল গাফফার চৌধুরী প্রমুখ।

u2

বাঙালি শিক্ষার্থীদের সাফল্যের প্রশংসা করে প্রতিমন্ত্রী ডেসমন্ড সোয়েন বলেন, একদিন এদের মধ্য থেকেই কেউ হয়তো যুক্তরাজ্যকে নেতৃত্ব দেবে।

পূর্ব লন্ডনের স্বনামধন্য মালব্যারি গার্লস স্কুলের প্রধান শিক্ষক ভেনেসা অগডেন তাঁর বক্তব্যে বাঙালি পিতা-মাতাদের সচেতনতা ও দায়িত্বশীলতার প্রশংসা করেন। তিনি বলেন, বাঙালি অভিভাবকদের জীবনের একমাত্র চাওয়াই যেন সন্তানের ভালো ফলাফল। এ বিষয়টি বাঙালি শিক্ষার্থীদের ভালো ফলাফলে মূল নিয়ামক হিসেবে কাজ করে।

​মালব্যারি গার্লস স্কুলের বেশির ভাগ শিক্ষার্থী বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত। যুক্তরাজ্যে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত প্রথম এমপি রুশনারা আলী এই বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ছিলেন। গত বছর মার্কিন ফার্স্ট লেডি মিশেল ওবামা যুক্তরাজ্য সফরে এলে মালব্যারি গার্লস স্কুলকেই তিনি বক্তৃতা দেওয়ার জন্য বেছে নেন। মিশেলের আমন্ত্রণে স্কুলটির তিনজন বাঙালি শিক্ষার্থী হোয়াইট হাউস ঘুরে আসে।

হাইকমিশনার এম এ হান্নান কৃতী শিক্ষার্থীদের অভিনন্দন জানিয়ে বলেন, তারা যেন নিজেদের মাতৃভূমি তথা শেকড়ের কথা ভুলে না যায়। তারা যেন বাংলা ভাষা ও সংস্কৃতির সঙ্গে পরিচয় না হারায়। তাদের বাংলাদেশ ভ্রমণের আমন্ত্রণ জানিয়ে তিনি বলেন, বাংলাদেশও দ্রুত উন্নতির দিকে এগিয়ে যাচ্ছে।