গোলাপগঞ্জ উপজেলাকে বাল্য বিবাহ মুক্ত ঘোষণা

gpগোলাপগঞ্জ প্রতিনিধি : গোলাপগঞ্জ উপজেলাকে বাল্য বিবাহ মুক্ত ঘোষণা করা হয়েছে। উপজেলা প্রশাসন কর্তৃক আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে সিলেটের বিভাগীয় কমিশনার মোহাম্মদ জামাল উদ্দিন আহমদ ও সিলেটের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ জয়নাল আবদীন আনুষ্ঠানিক ভাবে এ ঘোষণা দেন।“শিশু কন্যার বিয়ে নয়, বিশ্ব তারা করবে জয়” এ স্লোগানকে সামনে রেখে উপজেলা পরিষদে বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

 

গত বৃহস্পতিবার বিকেল ৩টায় উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ আশরাফুল আলম খানের সভাপতিত্বে, সহকারী কমিশনার (ভূমি) মৌরিন করিমের উপস্থাপনায় ও মাওলানা আরিফুর রহমানের পবিত্র কোরআন তেলাওয়াতের মাধ্যমে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্টানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সিলেটের বিভাগীয় কমিশনার মোহাম্মদ জামাল উদ্দিন আহমদ।

 

 

প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে বলেন,অল্প বয়সে কোন মেয়ে মা হলে কোন ভাবেই সে শারিরীক ও মানসিক ভাবে সুস্থ থাকতে পারবে না। আমাদের দেশে ১শ’টির মধ্যে ৬৬ টি বিয়ে বাল্য বিবাহের অন্তর্ভক্ত।বাল্য বিবাহ বন্ধ করা সম্ভব না হলে সমৃদ্ধ দেশ ও জাতি গঠনের কাজ সম্ভব হবে না। বাল্য বিবাহ বন্ধের লক্ষে জনপ্রতিনিধি ও নিকাহ্ রেজিস্ট্রোশনের সঙ্গে সম্পৃক্তরা গুরু দায়িত্ব পালন করতে হবে।তিনি গোলাপগঞ্জের সোনালী অতীতের চিত্র তুলে ধরে বলেন, এ জনপদের অধিবাসীরা দীর্ঘকাল ধরে গৌরবের দাবিদার।এখানে বাল্য বিবাহ হলে তা কোন ভাবেই মেনে নেয়া যাবে না। তাই শিক্ষিত সুধীজনের জন্মভূমি গোলাপগঞ্জ থেকেই বাল্য বিবাহ রোধের লক্ষে কার্যকর পদক্ষেপ নিতে হবে, যা দেশের জন্য একটি উদাহরণ সৃষ্টি করে। তিনি আরও বলেন, কুঁড়িতে বুড়ি নয়, বিশের বিয়ের আগে নয়, এ চেতনা ও কথা আমাদের মধ্যে জাগ্রত রাখতে হবে। বক্তব্যের শেষ পর্যায়ে বাল্য বিবাহ বন্ধ ও বন্ধের লক্ষে সবাই একযোগে কাজ করার জন্য শপথ বাক্য পাঠ করান।

 

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে সিলেটের জেলা প্রশাসক বলেছেন, ১৮ বছরের আগে কোন কাজী বিয়ের কাবিন রেজিস্ট্রি করলে বাল্য বিবাহ আইনে জেল খাটতে হবে।প্রয়োজনে মোবাইল কোটের মাধ্যমে সাজা দেয়া হবে। তিনি বলেন, বাল্য বিবাহ একটি অভিশাপ, নিজের সন্তানকে বোঝা মনে করে বিয়ে দিয়ে দায় মুক্তির চিন্তা-চেতনা পরিহার করতে হবে।

 

 

অনুষ্টানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হাফিজ নজমুল ইসলাম,মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান এডভোকেট শাহানা হোসাইন, গোলাপগঞ্জ পৌরসভার মেয়র সিরাজুল জব্বার চৌধুরী, উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি আব্দুর রহমান, সেক্রেটারী রফিক আহমদ,জেলা আওয়ামীলীগ নেতা সৈয়দ মিছবাহ উদ্দিন, সিলেট পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ এর সেক্রেটারী সাংবাদিক আব্দুল আহাদ,আমুড়া ইউনিয়নের নব-নির্বাচিত চেয়ারম্যান রুহেল আহমদ,সমাজ সেবীকা তাহের একা সিরাজ, মাদ্রাসা শিক্ষক মাওলানা মাসুদ আহমদ।

 

 

 

অনুষ্টান শুরুর পূর্বে উপজেলা পরিষদ প্রাঙ্গন থেকে র‍্যালী বের করা হয়। এতে বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার আলহাজ্ব শফিকুর রহমান, পৌর কমান্ডার হানিফ আলী,সাংবাদিক মাহফুজ আহমদ চৌধুরী, আমুড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আছদ্দর আলী, ফুলবাড়ী ইউনিয়নের নব-নির্বাচিত চেয়ারম্যান মাহবুবুর রহমান ফয়ছল, বাদেপাশা ইউনিয়নের নব-নির্বাচিত চেয়ারম্যান মোস্তাক আহমদ, ঢাকাদক্ষিণ ইউনিয়নের নব-নির্বাচিত চেয়ারম্যান আব্দুর রহিম, সাংবাদিক সৈয়দ জেলওয়ার হোসেন স্বপন, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডের সভাপতি গোলাম দস্তগীর খান ছামিন প্রমুখ।