বিয়ানীবাজারে পাকিস্তানী বাহিনীর সহযোগী ছিলেন যারা

শিপার আহমেদ :: বিয়ানীবাজারে শান্তি কমিটি গঠনের পরই এর আহবায়কের দায়িত্ব দেয়া হয় নবাং গ্রামের আব্দুর রহিম ওরফে বচন হাজীকে। তিনি ছিলেন তৎকালীন সময়ের মুসলিম লীগ নেতা ও স্থানীয় মোড়ল। মুক্তিযুদ্ধ শুরুর প্রথম দিক থেকেই তিনি এই দায়িত্ব পালন শুরু করেন। শ্রীধরা গ্রামের আব্দুল হক কুটু মনা পাকিস্তানী আর্মির অফিসার ও সৈন্যদের ভোগ বিলাসের জন্য নারী সরবরাহ করতেন। রাজাকার বাহিনী পরিচালনা করতেন গোবিন্দ শ্রী গ্রামের শফিক আহমদ। এছাড়াও হাজী সিকন্দর আলী, মছদ্দর আলী মষট্টি, ফুরকান আলী মাস্টার, আব্দুল মালিক তাপাদার দুদু মিয়া, মজির উদ্দিন চেয়ারম্যান, মুজম্মিল আলী কালা মিয়া, কাজী ইব্রাহিম আলী, জামিল রেদওয়ান ওরফে বোরকা হাজী, সুলেমান হোসেন খান, আতর আলী, বাহার উল্লাহ, মতছির আলী, ফিরোজ আলী, গনিউর রহমান, রইছ আলী, তেরা মিয়া চৌধুরী, ইউসুফ আলী, আব্দুল খালিক, মুশফিকুর রহমান চৌধুরী ওরফে চুনু মিয়া, মধু মিয়া, ডাঃ মঈন উদ্দিন আহমদ, আব্দুর রাজ্জাক প্রমুখ পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীকে বিভিন্নভাবে সহযোগিতা করেছেন। এদের অধিকাংশই ছিলেন মুসলিম লীগ, নেজামে ইসলাম কিংবা জামায়াতে ইসলামের নেতাকর্মী।