ফ্রিজ থেকে গ্রেনফেল টাওয়ারে আগুন লাগে

ডেস্ক

মার্কিন ও ইউরোপীয় ব্র্যান্ড হট পয়েন্ট-এর একটি ত্রুটিপূর্ণ ফ্রিজ থেকেই গ্রেনফেল টাওয়ারে আগুনের সূত্রপাত হয় বলে নিশ্চিত করেছে লন্ডন পুলিশ।

লন্ডন পুলিশের ডিটেকটিভ সুপারিনটেনডেন্ট ফিওনা ম্যাককরমাক বলেন, “আগুন যে ইচ্ছাকৃতভাবে লাগানো হয়নি সেটি এখন প্রমাণিত হল।”

গত ১৪ জুন রাত ১টা ১৫ মিনিটের দিকে পশ্চিম লন্ডনের গ্রেনফেল টাওয়ারে আগুন লাগে। নিখোঁজদের বেঁচে থাকার সম্ভাবনা ছেড়ে দিয়ে এ ঘটনায় অন্তত ৭৯ জনের প্রাণহানির আশঙ্কা করা হচ্ছে। ত্রুটিপূর্ণ একটি ফ্রিজ থেকে যে আগুনের সূত্রপাত হয়েছে তা প্রাথমিকভাবেই ধারণা করা হয়েছিল।

তবে শুক্রবার (২৩ জুন) পুলিশের ডিটেকটিভ সুপারিনটেনডেন্ট ফিওনা ম্যাককরমাক জানান, ত্রুটিপূর্ণ ওই ফ্রিজটি হটপয়েন্টের তৈরি এবং সরকারের পক্ষ থেকে এরইমধ্যে ওই কোম্পানির ফ্রিজগুলো পরীক্ষার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তবে এফএফ১৭৫বিপি মডেলের ফ্রিজটি আগে কখনও ঝুঁকিপূর্ণ বলে শনাক্ত হয়নি।

ফিওনা বলেন, গ্রেনফেল টাওয়ার থেকে ইনসুলেশনের যে নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছিল সেগুলো দিয়ে নিরাপত্তা পরীক্ষা শুরু করার পর পরই তা বিস্ফোরিত হয়। তিনি জানান, ক্ল্যাডিং এর চেয়েও অনেক বেশি দাহ্য ছিল ওই ইনসুলেশন। এখন এসব উপকরণগুলোর ব্যবহার যুক্তরাজ্যে নিষিদ্ধ কিনা তা নিয়ে তদন্ত চলছে বলে জানান ফিওনা।

গ্রেনফেল টাওয়ারের সব ক্ষতিগ্রস্তের কথা শুনতে চান তিনি।

‘এ ট্র্যাজেডির কারণে ক্ষতিগ্রস্ত কেউ যেন অজানা না থেকে যান তাই আমি চাই। গ্রেনফেল টাওয়ারে কারা ছিলেন সেটা জানাই আমাদের প্রাধান্যের বিষয়। গ্রেনফেল টাওয়ারে মানুষের থাকার কারণ জানতে আমরা আগ্রহী নই।’ বলেন ফিওনা।

তিনি জানান, হত্যাকাণ্ডের সম্ভাব্যতা মাথায় রেখে অপরাধের তদন্ত চলছে। অগ্নি নিরাপত্তার পাশাপাশি ভবন ও এর সংস্কার কাজে সংশ্লিষ্ট প্রত্যেকটি কোম্পানিকে নিয়ে পর্যালোচনা করা হচ্ছে।