কৌশলে ছোট ভাইকে বঞ্চিত করছেন নওয়াজ শরিফ!

ডেস্ক :

অভিযোগ উঠেছে, কৌশলে ছোট ভাই শাহবাজ শরিফকে বঞ্চিত করছেন নওয়াজ শরিফ।

পাকিস্তান মুসলিম লীগ-এন-এর পাঞ্জাব প্রদেশের নেতারা মনে করছেন, সরকারের এই মেয়াদে শাহবাজ শরিফের প্রধানমন্ত্রী হওয়া এবং তার ছেলের মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার সুযোগ সুকৌশলে ভণ্ডুল করে দিচ্ছেন নওয়াজ শরিফ।

তাদের মতে, শাহবাজ তার ভাইয়ের উত্তরসূরি হওয়ার সুবর্ণ সুযোগ হারাচ্ছেন বা তাকে হারানো হচ্ছে। কারণ ২০১৮ সালের জাতীয় নির্বাচনে দল বিজয়ী হলেও শীর্ষ পদে আসীন হওয়ার কোনো নিশ্চয়তা থাকছে না তার। ওই পদে নওয়াজ শরিফ পরিবারের জ্যেষ্ঠ সদস্যদের আসার সম্ভাবনা বেশি।

পাঞ্জাব প্রদেশের নেতারা মনে করছেন, ২০১৮ সালে সরকার গঠন করলে শীর্ষ পদে আসতে পারেন নওয়াজ শরিফের মেয়ে মরিয়ম শরিফ। যদি তিনি মামলা জটিলতা কাটিয়ে উঠতে না পারেন, সেক্ষেত্রে নওয়াজ শরিফের স্ত্রী কুলসুমকে প্রধানমন্ত্রী করা হতে পারে।

পাঞ্জাব প্রদেশে শাহবাজের ঘনিষ্ট পাকিস্তান মুসলিম লীগ-নওয়াজের (পিএমএল-এন) এক নেতা শুক্রবার ডন নিউজকে বলেন, ‘২০১৮ সালে শাহবাজের প্রধানমন্ত্রিত্বের পথে অনেকে বাধা হয়ে দাঁড়াবেন। হয় তিনি তার বড় ভাইকে বোঝাতে ব্যর্থ হয়েছেন নাহয় স্মার্ট রাজনীতির মাধ্যমে তাকে পাঞ্জাবে রেখে দেওয়া হচ্ছে।’

নাম প্রকাশ না করার শর্তে আরেক নেতা দাবি করেছেন, ‘খুব দক্ষতার সঙ্গে পারিবারিক রাজনীতি করেছেন নওয়াজ শরিফ। প্রথমে তিনি উত্তরসূরি হিসেবে ভাইয়ের নাম ঘোষণা করেছেন। পরে দলের মধ্যে প্রচার করিয়েছেন, পাঞ্জাবে শাহবাজ না থাকলে দলের জন্য খুব রাখাপ হবে।’

ওই নেতা ডন নিউজকে বলেছেন, পাঞ্জাব নিয়ে উদ্বিগ্ন না হতে এবং পাঞ্জাবের দায়িত্ব তার ছেলেকে দেওয়ার জন্য নওয়াজকে বোঝাতে সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছেন শাহবাজ। পাঞ্জাবের প্রাদেশিক পরিষদের ৩০০ সদস্যের সুপারিশও নওয়াজের কাছে পাঠিয়েছেন তিনি। তবে শাহবাজকে প্রধানমন্ত্রী পদে ‍উত্তরসূরি করার বার্তা দেওয়ার পরই নওয়াজ রাজনীতির খেল দেখিয়েছেন। পাঞ্জাবের আইনমন্ত্রী রানা সানাউল্লাহকে দিয়ে বলিয়েছেন, দলের বেশির ভাগ নেতা শাহবাজকে পাঞ্জাবে চান। তিনি প্রধানমন্ত্রী হলে পাঞ্জাবে দলের বিপর্যয় হবে।

একজন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী ডন নিউজকে বলেছেন, পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শাহবাজকে বহাল রাখার সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত হয়েছে। তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী খাকান আব্বাসির মন্ত্রিসভার সম্প্রসারণ থেকে তার প্রমাণ পাওয়া যায়।’ তিনি আরো জানান, এ অবস্থায় কেন্দ্রের দেখাশোনা করবেন নওয়াজ আর পাঞ্জাবের দেখাশোনার দায়িত্ব থাকবে শাহবাজের ওপর।

জাতীয় পরিষদের ১২০ নম্বর আসনের উপনির্বাচনে শাহবাজের প্রার্থী হওয়ার ঘোষণা আনুষ্ঠানিকভাবে যেকোনো সময় প্রত্যাহার করা হবে। ২৭ জুলাই পাকিস্তান সুপ্রিম কোর্ট নওয়াজ শরিফকে প্রধানমন্ত্রী পদে অযোগ্য ঘোষণা করলে ওই আসন শূন্য হয়। তখন নওয়াজ শরিফ ঘোষণা দেন, তার উত্তরসূরি হবে তার ছোট ভাই শাহবাজ শরিফ। তবে প্রধানমন্ত্রী হওয়ার জন্য তাকে জাতীয় পরিষদের (পার্লামেন্ট) সদস্য হতে হবে এবং এজন্য উপনির্বাচনে লড়েই তা হতে হবে। এ সময়ে একজন অন্তর্বর্তী প্রধানমন্ত্রী দায়িত্ব পালন করবেন এবং পরিকল্পনামতো খাকান আব্বাসি সেই দায়িত্ব গ্রহণ করেছেন। কিন্তু এখন সব হিসাব পাল্টে যাচ্ছে- হয়তো শাহবাজ আর প্রধানমন্ত্রী হতে পারছেন না।

কেন্দ্রীয় মন্ত্রী খাজা আসিফ ও খুররাম দস্তগিরও দলীয় সিদ্ধান্তের বিষয়ে একমত। তারা জানিয়েছেন, দল চায় শাহবাজ পাঞ্জাবে থাকুন। কারণ সেখানে দলের ওপর তার নিয়ন্ত্রণ ভালো। পাঞ্জাবের আইনমন্ত্রী রানা সানাউল্লাহও জানিয়েছেন, শাহবাজকে পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী পদে বহাল রাখার সিদ্ধান্ত প্রায় চূড়ান্ত।

পাঞ্জাব সরকারের মুখপাত্র মালিক আহমদ খান শুক্রবার জানিয়েছেন, নওয়াজ শরিফের নেতৃত্বে পরিচালিত দল থেকে শাহবাজের প্রার্থী হওয়ার সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করতে বলা হয়েছে। তবে দুই ভাইয়ের মধ্যে নেতৃত্ব নিয়ে কোনো দ্বন্দ্ব তৈরি হয়েছে কিনা, সে বিষয়ে মন্তব্য করতে রাজি হননি তিনি।