গোলাপগঞ্জে কর্মরত সাংবাদিকদের কৃতজ্ঞতা প্রকাশ

সত্য ও ন্যায়ের পক্ষে অতীতের মতো বর্তমানেও সাংবাদিকদের পাশে থেকে সমর্থন ও সাহস জোগানোর জন্য গোলাপগঞ্জ পৌরবাসী, উপজেলাবাসী তথা দেশ বিদেশে অবস্থানরত সকল শুভাকাংখিদের প্রতি চির কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন গোলাপগঞ্জ কর্মরত  বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক্স এবং অনলাইন মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ। গোলাপগঞ্জ প্রেসক্লাব, গোলাপগঞ্জ অনলাইন প্রেসক্লাব, গোলাপগঞ্জ সাংবাদিক কল্যাণ সমিতি, গোলাপগঞ্জ রিপোর্টাস ইউনিটি, গোলাপগঞ্জ সাংবাদিক ইউনিয়ন সহ সাংবাদিকদের সংগঠনের পক্ষ থেকে সিনিয়র সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ  কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। নেতৃবৃন্দ বলেন সাধারন জনগনের অধিকার আদায়ের জন্য যখনই সাংবাদিকের কলম জেগে উঠে তখনই শয়তানী  অপশক্তি প্রভাব বিস্তার করতে শুরু করে। বিশেষ করে গোলাপগঞ্জ পৌরসভার নাগরিকদের অধিকার ফিরে পাওয়ার দাবী দাওয়া তুলে ধরে পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশ করলে গোলাপগঞ্জ সাংবাদিক কল্যাণ সমিতির সভাপতি  ও তৎকালীন সময়ে দৈনিক যুগভেরী এবং দৈনিক আজকের পত্রিকার প্রতিনিধি মাহবুবুর রহমান চৌধুরীকে শয়তানী অপশক্তি তাদের পরিবারের  এক সুন্দরী মহিলাকে জড়িয়ে একটি সাজানো ফেসবুক পোষ্ট দিয়ে তথ্য প্রযুক্তি আইনে একটি মিথ্যা মামলা দায়ের করে যা আদালতে মিথ্যা প্রমাণিত হয়।  এই মিথ্যা মামলার প্রতিবাদে ঐ সময়  সাংবাদিক সমাজের ডাকে  একাত্মতা ঘোষনা করে  গোলাপগঞ্জের সর্বস্থরের হাজার হাজার জনতা মানব বন্ধন সহ প্রতিবাদ সভায় অংশ গ্রহন করে।  এর কিছুদিন পর শয়তানী অপশক্তি সাংবাদিক মাহবুবকে  হত্যার উদ্দেশ্যে প্রকাশ্য দিবালোকে দেশীয় অস্ত্র সহ হামলা চালায় শয়তানী অপশক্তির পুজারী  সন্ত্রাসী দিদারুল আলম দিদার।  ঐ কাপুরুষিত হমালার ঘটনায় মামলা দায়ের হলে দিদার পলাতক হয়ে যায়। এই  কাপুরুষিত হামলার নিন্দা  ও পলাতক আসামী দিদারকে গ্রেফতারের দাবীতে ঐ সময়  সাংবাদিক সমাজের ডাকে  আবারো  একাত্মতা ঘোষনা করে  গোলাপগঞ্জের সর্বস্থরের হাজার হাজার জনতা মানব বন্ধন সহ প্রতিবাদ সভায় অংশ গ্রহন করে।  জনগণের অংশগ্রহন আর জনগনের ভালবাসা সাংবাদিক সমাজকে চিরঋনী  করে রেখেছে। সম্প্রতি আবারো এই অপশক্তি মাথাচাড়া দিয়ে উঠে সাংবাদিক আব্দুল আহাদের বিরুদ্ধে অশালীন ও অভদ্র ভাষা ব্যবহার করে ফেসবুকে নিজ আইডিতে পোষ্ট করতে থাকে শয়তানের পুজারী দিদার।  শুধু তাই নয় ২০১৬ সাল থেকে অব্যাহতভাবে  একরে পর এক পোষ্ট দিতে থাকে দিদার। এরই প্রেক্ষিতে সাংবাদিক সমাজ কয়েক দফা  বিশেষ বৈঠক করে সিদ্ধান্ত নেন অপরাধীদের আর প্রশ্রয় দেওয়া ঠিক হবেনা। এক এক করে সব অপরাধীকে আইনের ্আওতায় এনে আইনীভাবে তাদের কুকর্মের জবাব দেওয়া হবে। যারা এসব অশ্লীল পোষ্টে লাইক, শেয়ার এবং অশ্লীল ভাষায় কমেন্ট করেছে তাদেরকেও তথ্য প্রযুক্তি আইনে দেওয়া প্রদত্ত ক্ষমতাবলে মামলার তদন্ত কর্মকর্তার মাধ্যমে ধীরে ধীরে আইনীভাবে গ্রেফতার করার সিদ্ধান্ত হয়েছে।
তদন্তকর্তা সকল পোষ্ট ডিজিটালভাবে সংগ্রহের উদ্যোগ গ্রহন করেছেন। গত সোমবার পলাতক থাকা অবস্থায় আসামী দিদার পুলিশের হাতে গ্রেফতার হওয়ায় গোলাপগঞ্জে স্বস্থি নেমে এসেছে। পুলিশ  প্রশাসনকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন  গোলাপগঞ্জের সাংবাদিক সমাজ। সাংবাদিকদের কল করে সমর্থন, সাহস ও সহযোগীতার আশ্বাস দিয়েছেন অনেকে। সৎ ও ন্যায়ের পথে জনসাধারনের সর্মথনের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে সাংবাদিক সমাজ ভবিষ্যৎে জনস্বার্থে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার অঙ্গীকার করেছেন। সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ বিভিন্ন সময়ে  সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে আয়েীজিত মানব বন্ধন , প্রতিবাদ কর্মসূচী সহ মতবিনিময় সভায় স্বতঃস্ফুর্ত অংশগ্রহনের জন্য সবাইকে কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জানান।