রোহিঙ্গা গণহত্যার প্রমাণ পায়নি যুক্তরাষ্ট্র

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ::

রোহিঙ্গা গণহত্যাকে কেন্দ্র করে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক নিষেধাজ্ঞা আরোপের আহ্বান জানাতে অস্বীকার করেছে যুক্তরাষ্ট্র।

বৃহস্পতিবার ওয়াশিংটনে মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তরের মুখপাত্র হিথার নাউয়ার্ট সাংবাদিকদের বলেন, মিয়ানমার নিয়ে আলোচনা চলছে এবং এ সময় আগ বাড়িয়ে পদক্ষেপ নিতে চায় না যুক্তরাষ্ট্র। তিনি দাবি করেন, মিয়ানমারের রাষ্ট্রীয় সহায়তায় গণহত্যা চালানো হচ্ছে বলে যেসব খবর প্রকাশিত হয়েছে তা বিশ্বাসযোগ্য বলে প্রমাণ পায়নি মার্কিন কর্মকর্তারা।

গত কয়েক মাস ধরে মিয়ানমারের নিরাপত্তা বাহিনী এবং বৌদ্ধ সন্ত্রাসীরা রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গাদের ওপর নৃশংস হত্যাকাণ্ড চালাচ্ছে।

নানা সূত্র থেকে প্রকাশিত খবর থেকে জানা গেছে, মুসলিম অধ্যুষিত গোটা গ্রাম আগুনে পুড়িয়ে দেয়া হয়েছে। নারী-শিশুসহ ব্যাপক সংখ্যক মুসলমানকে পুড়িয়ে বা পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে। ধর্ষণ করা হয়েছে অসংখ্য নারীকে।

রাখাইন রাজ্যে ত্রাণ কর্মীদের প্রবেশিধিকার দেয়ার জন্য মিয়ানমার সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন হিথার নাউয়ার্ট।

তিনি বলেন, ‘রাখাইন রাজ্যে চলমান পরিস্থিতি নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র উদ্বিগ্ন। তবে রাষ্ট্রীয় মদতে গণহত্যার প্রমাণ পায়নি যুক্তরাষ্ট্রের কর্মকর্তারা।’

আরাকান রোহিঙ্গা স্যালভেশন আর্মি( আরসা) নামে একটি গোষ্ঠী গত ২৫ আগস্ট ভোরে রাখাইনের কয়েকটি পুলিশ চৌকিতে অতর্কিতে হামলা চালায়। এ ঘটনার পর সেনাবাহিনী রোহিঙ্গা অধ্যুষিত মংডু, রাথেডাং, বোথেডাং এলাকায় অভিযান চালায়। সেনা অভিযানে এ পর্যন্ত চার শতাধিক বেসামরিক নাগরিক নিহত হয়েছে, যার বেশির ভাগই রোহিঙ্গা।

মিয়ানমারে মোট ১১ লাখ রোহিঙ্গার বসবাস, যারা দীর্ঘদিন ধরে বৌদ্ধপ্রধান মিয়ানমারে জাতিগত নিপীড়নের শিকার।

এছাড়া, প্রাণভয়ে পালাতে যেয়ে অনেক রোহিঙ্গা মুসলমান মারা গেছেন। তা সত্ত্বেও মিয়ানমারের মুসলমানদের বিরুদ্ধে গণহত্যা চালানোর কোনো বিশ্বাসযোগ্য তথ্য পায়নি বলে দাবি করল যুক্তরাষ্ট্র।

সূত্র: পার্স টুডে