সাকিব নির্বাচকদের ঝামেলায় ফেলে দিয়েছেন

ক্রীড়া ডেস্ক :

সোমবার বিকাল পাঁচটায় আনুষ্ঠানিক দল ঘোষণা করবে বিসিবি। যতদূর জানে গেছে,  দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে টেস্ট দলে থাকছেন না বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান! তিনি নাকি ভীষণ ক্লান্ত। এ জন্য ৬ মাস টেস্টের বাইরে থাকতে চান। বোর্ডের কাছে এমন আবেদনও করেছেন। বোর্ডের পক্ষ থেকে সাকিবকে মত পাল্টানোর জন্য বোঝানো হলেও সাকিব তার সিদ্ধান্তে আপাতত অনঢ়।

সাকিবের এমন সিদ্ধান্ত ঝামেলায় ফেলে দিয়েছে জাতীয় নির্বাচক কমিটি ও টিম ম্যানেজমেন্টকে। শনিবার দল ঘোষণা করার কথা থাকলেও সাকিবের বিষয়টার কারণে রবিবারও দল ঘোষণা করা হয়নি। পিছিয়ে নিতে হয়েছে দুই দিন।

সাকিবের বিকল্প খুঁজে পাওয়া মোটেও সহজ নয়। অলরাউন্ডার হলেও সাকিবই দলের মেইন স্ট্রাইক স্পিন বোলার। দলের ব্যাটিং শক্তিও তার উপর অনেকটা নির্ভরশীল। সাকিবের ব্যাপারটায় তাই যথেষ্ট ঝামেয়ায় পড়ে গেছেন নির্বাচকরা।

জানা গেছে, শুক্রবার গুলশানের নিজের বাসায় প্রধান নির্বাচক, অধিনায়ক মুশফিক, কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহে ও ম্যানেজার খালেদ মাহমুদ সুজনকে ডেকেছিলেন বোর্ড প্রেসিডেন্ট নাজমুল হাসান পাপন। ওই মিটিংয়ে নানা বিষয় আলোচনা হলেও প্রধান ইস্যু ছিল দক্ষিণ আফ্রিকা সফরের টেস্ট দল চূড়ান্ত করা। কিন্তু ওই দিন ১৫ সদস্যের দল চূড়ান্ত করতে পারেননি তারা।

সাকিব যদি সিদ্ধান্ত পাল্টান, এ জন্য অপেক্ষা করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল ওই দিন। সাকিবকে বোঝানোও হয়েছে বোর্ডের পক্ষ থেকে।কিন্তু সাকিব জানান, তিনি এই  মুহূর্তে খুবই ক্লান্ত।

জানা গেছে, ৬ মাস নয়, তিন মাস টেস্টের বাইরে থাকার ছুটি দেওয়ার ব্যাপার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিসিবি। মানে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে আসন্ন টেস্ট সিরিজেই কেবল দলের বাইরে থাকবেন সাকিব। চলতি বছরের শেষ দিকে শ্রীলঙ্কা সফরে আসবে বাংলাদেশ। ওই  সিরিজে টেস্ট দলে থাকতে হবে, সাকিবকে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে। একই সঙ্গে দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে শেষমেশ মত পাল্টাবেন সাকিব, সে আশায়ও রয়েছে বিসিবি।

১৬ সেপ্টেম্বর দক্ষিণ আফ্রিকা রওনা করবে বাংলাদেশ টেস্ট দল। সেখানে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজ খেলবে টাইগাররা। তিনটি ওয়ানডে ও দুই ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজও রয়েছে সফরে।