‘মফিজ পাগলা’র ‘হাফ সেঞ্চুরি’

বিনোদন ডেস্ক,

বাংলা নাট্যজগতের অতি সুপরিচিত মুখ অভিনেতা জাহিদ হাসান। যার বৈচিত্রপূর্ণ অভিনয়ে মুগ্ধ হন না এমন বিনোদনপ্রেমী খুঁজে পাওয়া দায়। নাটকে এবং চলচ্চিত্রে বিভিন্ন ধারার চরিত্রে অভিনয় করেন তিনি।  তবে দর্শকের কাছে তাঁর অন্যান্য চরিত্রগুলোর পাশাপাশি কৌতুক চরিত্রগুলোই বেশি আদরণীয়।  তাঁর বিখ্যাত কৌতুক চরিত্র ছিল দেশবরেণ্য কথাসাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদ পরিচালিত ‘মন্ত্রী মহোদয়ের আগমন’ টেলিফিল্মে মফিজ পাগলার চরিত্রটি।

আজ সেই ‘মফিজ পাগলা’র ৫১ তম জন্মদিন। জীবনের ৫০টি বসন্ত পার ফেলেছেন অভিনেতা। করে ফেলেছেন বয়সের হাফ সেঞ্চুরি। ১৯৬৭ সালের এই দিনে সিরাজগঞ্জে নানা বাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন আরমান ভাই খ্যাত জাহিদ হাসান। তার বাবা ইলিয়াস উদ্দিন তালুকদার ছিলেন একজন কাস্টম অফিসার এবং মা হামিদা বেগম ছিলেন গৃহিণী।  পাঁচ ভাই ও তিন বোনের মধ্যে জাহিদ হাসান সবার ছোট। পারিবারিক জীবনে স্ত্রী সাদিয়া ইসলাম মৌ এবং মেয়ে পুষ্পিতা ও ছেলে পূর্ণকে নিয়ে তার সংসার। থাকেন ঢাকার মোহাম্মদপুরে।

অভিনয়ে আসার আগে মঞ্চ নাটকের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন জাহিদ হাসান। ১৯৮৬ সালে বাংলাদেশ, পাকিস্তান ও শ্রীলংকার যৌথ প্রযোজনার ‘বলবান’ ছবিতে তিনি প্রথম অভিনয় করেন। তবে সেখানে তিনি সাড়া ফেলতে পারেননি। পরে হুমায়ূন আহমেদ পরিচালিত ‘নক্ষত্রের রাত’, ‘মন্ত্রী মহদয়ের আগমন’, ‘সমুদ্র বিলাস প্রাইভেট লিমিটেড’, ‘আজ রবিবার’ টেলিফিল্মগুলো তাকে জনপ্রিয়তার শীর্ষে নিয়ে আসে। অভিনয়ের পাশাপাশি নাটক পরিচালনাও করে থাকেন জাহিদ হাসান। তার ‘পুস্পিতা প্রডাকশন লিমিটেড’ নামে একটি প্রযোজনা সংস্থা রয়েছে।

১৯৯৯ সালে হুমায়ূন আহমেদ পরিচালিত ‘শ্রাবণ মেঘের দিন’ চলচ্চিত্রে কেন্দ্রীয় চরিত্রে অভিনয় করে ‘জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার’ অর্জন করেন জাহিদ হাসান। এছাড়াও তিনি তারকা জরিপে সাত বার ‘মেরিল প্রথম আলো’ পুরস্কার লাভ করেন। নাটকে অভিনয় করে এ সাতটি পুরস্কার জেতেন অভিনেতা। বয়স পঞ্চাশ পেরিয়ে এখনও তিনি নাট্যজগতের শীর্ষ অভিনেতাদের একজন।