লাশ দাফন নিয়ে গোলাপগঞ্জ রণক্ষেত্র, ওসি,মেয়র সহ আহত অর্ধশতাধিক

গোলাপগঞ্জ পৌরসভার ২নং ওয়ার্ড ফুলবাড়ী বড় মোকাম গোরস্থানে লাশ দাফনকে কেন্দ্র করে ফুলবাড়ী পূর্ব পাড়ার সাথে উত্তর ও দক্ষিণ পাড়ার সংঘর্ষে গোলাপগঞ্জ মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ এ কে এম ফজলুল হক, গোলাপগঞ্জ পৌরসভার মেয়র সিরাজুল জব্বার চৌধুরী, প্যানেল মেয়র হেলালুজ্জ্বামান হেলাল সহ অন্তত ৫০ জন লোক আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। বৃহস্পতিবার বিকাল ৫টায় মাইকে ঘোষনা দিয়ে দুই পক্ষ সংঘর্ষে জড়ালে এঘটনা ঘটে। এই ঘটনায় সিলেট জকিগঞ্জ সড়কের গোলাপগঞ্জ পৌরশহর থেকে দক্ষিণ সুরমার কুচাই পর্যন্ত অংশে প্রায় ১০ কিলোমিটার ব্যাপী শত শত যান আটকা পড়ে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে পুলিশ অন্তত বিশ রাউন্ড ফাকা গুলি নিক্ষেপ করেছে। সংঘর্ষ থামাতে গিয়ে দুইপক্ষের পাল্টাপাল্টি ইট-পাথর নিক্ষেপের মধ্যে পড়ে ওসি, মেয়র ও কাউন্সিলর সহ দুইপক্ষে অর্ধশতাধীক আহত হয়েছেন।

প্রত্যক্ষীদর্শী সূত্রে জানাগেছে, বৃহস্পতিবার রাতে লক্ষীপাশা ইউনিয়নের রামপা গ্রামের আবুল কালামের কিশোরী মেয়ে ফারজানা আমিন (১৩) এর স্বাভাবিক মৃত্যু ঘটে। ফুলবাড়ী দক্ষিণ পাড়া গ্রামে পুরাতন বাড়ী থাকার সুবাধে গ্রামের রেওয়াজ অনুযায়ী ফারজানার পরিবার ফুলবাড়ী বড় মোকাম গোরস্থানে দাফন করার চেষ্টা করলে স্থানীয় কয়েকজন মুরব্বী কবর দিতে বাধা দেন। পরবর্তীতে নতুন করে কবর খুড়ে একই গোরস্থানের অন্য জায়গায় বৃহস্পতিবার দুপুর ২টায় দাফন করা হয় ফারজানাকে। বিকাল ৫টায় এনিয়ে বাদানুবাদে জড়ায় ফুলবাড়ী পূর্বপাড়া ও দক্ষিণপাড়ার লোকজন। পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়ে উঠলে দুইপক্ষ মাইকে ঘোষনা দিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এসময় লাটিসোটা নিয়ে এক পক্ষ আরেক পক্ষকে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া দেয় এবং প্রচুর পরিমানে ইট,পাথর নিক্ষেপ করে। খবর পেয়ে গোলাপগঞ্জ মডেল থানার ওসি, পৌর মেয়র, প্যানেল মেয়র ঘটনাস্থলে যান এসময় সংঘর্ষ থামাতে গিয়ে
ওসি ফজলুল হক পায়ে, মেয়র সিরাজুল জব্বার নাক ও মাথায়, প্যানেল মেয়র হেলাল মাথায় আঘাত পান। তারা প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছেন। এছাড়া দুইপক্ষের আহতরাও প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছেন বলে জানাগেছে।
ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে থানার ওসি (অপারেশন) দেলওয়ার হোসেন জানান, অন্তত পক্ষে বিশ রাউন্ড টিয়ার শেল নিক্ষেপ করে সংঘর্ষে লিপ্ত জনতাদের বিচ্ছিন্ন করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনা হয়। বর্তমানে বিপুল সংখক দাঙ্গা পুলিশ, রেব সদস্য ঘটনাস্থলে মোতায়েন করা হয়েছে। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত জানাগেছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে তবে যেকোন সময় আবারো সংঘর্ষ লেগে যেতে পারে। সিলেট জকিগঞ্জ সড়কে রাত সাড়ে ৭টা পর্যন্ত যান চলাচল স্বাভাবিক হয়নি।