বড়লেখায় স্বেচ্ছাসেবক দলের মিছিলে ছাত্রলীগের বাঁধা

বড়লেখা প্রতিনিধি::

বড়লেখায় স্বেচ্ছাসেবক দলের মিছিলে বাঁধা দিয়েছে ছাত্রলীগ। মঙ্গলবার দুপুর সাড়ে বারোটার দিকে এ ঘটনা ঘটে। পরে খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার দুপুর সাড়ে বারোটার দিকে মৌলভীবাজার জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের আহ্বায়ক ও পৌর কাউন্সিলর স্বাগত কিশোর দাস চৌধুরীর ওপর হামলার প্রতিবাদে উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি সেলিম উদ্দিন ও সাধারণ সম্পাদক সিরাজ উদ্দিনের নেতৃত্বে একটি মিছিল বের হয়। মিছিলটি পৌরশহরের ডাকবাংলো থেকে বের হয়ে মসজিদ মার্কেটের সামনে এলে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা তাদের বাঁধার দেয়। পরে স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতাকর্মীরা মিছিল না করেই শহরের উত্তর চৌমুনার দিকে চলে যায়। এ সময় উপজেলা যুবদলের সভাপতি সাবেক পৌর মেয়র ফখরুল ইসলাম, পৌর কাউন্সিলর আব্দুল হাফিজ ললন, যুবদল নেতা সাইফুল ইসলাম খোকন, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সাংগঠনিক সম্পাদক শাহরিয়ার জামান খালেদ, সাবেক ছাত্রদল নেতা জুয়েল আহমদ, ছাত্রদল নেতা নাদের আহমদ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে এ ঘটনার পর পরই ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা পৌরশহরে মিছিল বের করে। মিছিলটি পৌরশহর প্রদক্ষিণ শেষে পথ সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে বক্তব্য রাখেন উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক ছালেহ আহমদ জুয়েল, উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি তানিমুল ইসলাম তানিম, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক ফরহাদ আহমদ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাফিজুর রহমান, পৌর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক কাউন্সিলর রাহেন পারভেজ রিপন, ডিগ্রি কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি ইমরান হোসেন, সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রব বাবু প্রমুখ।

এ বিষয়ে উপজেলা যুবদলের সভাপতি সাবেক পৌর মেয়র ফখরুল ইসলামের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘মৌলভীবাজার জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের আহ্বায়ক ও পৌর কাউন্সিলর স্বাগত কিশোর দাস চৌধুরীর ওপর হামলার প্রতিবাদে স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতাকর্মীরা শান্তিপূর্ণভাবে একটি মিছিল বের করে। একই সময় ছাত্রলীগও মিছিল দিচ্ছিল। এ কারণে আমরা মিছিলটি ঘুরিয়ে উত্তর চৌমুনীর দিকে চলে যাই। তবে ছাত্রলীগের সাথে আমাদের কোন ঝামেলা হয়নি।’

উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক ছালেহ আহমদ জুয়েল বলেন, ‘সম্প্রতি মৌলভীবাজারে দলীয় অভ্যন্তরীণ বিরোধ ও প্রভাব বিস্তরকে কেন্দ্র করে নিজ দলের কতিপয় সন্ত্রাসীদের হামলায় মৌলভীবাজার জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের আহ্বায়ক ও পৌর কাউন্সিলর স্বাগত কিশোর দাস চৌধুরী আহত হন। এই ঘটনায় জেলার কোথাও কোন কর্মসূচি নেই। কিন্তু বড়লেখায় যুবলীগ সভাপতি ও সম্পাদকের দুর্বলতার সুযোগে বিএনপি প্রতিদিন কর্মসূচির নামে জনদুর্ভোগ সৃষ্টি করছে। তাই ছাত্রলীগ নেতা কর্মীরা তাদের মিছিল প্রতিহত করেছে।’

বড়লেখা থানার উপ-পরিদর্শক (তদন্ত) দেব দুলাল ধর বলেন, ‘খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়েছিল। কোন ঝামেলা হয়নি। পরিস্থিতি স্বাভাবিক আছে।’