মুশফিকই আমার নেতা: তামিম

ক্রীড়া ডেস্ক ::

টানা দুই টেস্ট হার, তার সঙ্গে টস জিতে আগে বোলিং নেয়ায় মুশফিকুর রহিমের ওপর সমালোচনার ঝড়। প্রশ্ন উঠেছে তার অধিনায়কত্ব নিয়ে। শঙ্কা ছিল দক্ষিণ আফ্রিকা সফরের পর দলনেতার আসন হারাবেন মুশি। কিন্তু বাংলাদেশ টেস্ট দলের সহকারী অধিনায়ক তামিম ইকবাল বলে দিলেন, ‘মুশফিকই আমার নেতা।’

‘মুশফিকুর রহিমই আমার অধিনায়ক। তার প্রতি আমার পূর্ণ সমর্থন আছে। যত দিন না বোর্ড তাকে এই দায়িত্ব থেকে না সরায়, তত দিন এই সমর্থন থাকবে। শুধু আমার নয়, দলের বাকি ২৪ জনের সমর্থনও থাকবে। কারণ সে আমাদের নেতা। বোর্ড যদি সিদ্ধান্ত নেয় মুশফিক সঠিক ব্যক্তি নয়, অন্য কাউকে দায়িত্ব দেবে, তাহলে সেটা তখন দেখা যাবে।’

টস নিয়ে তামিম বলেন, ‘টস জিতে ফিল্ডিং করা অবশ্যই দলের সিদ্ধান্ত। এটা কোনো সময় কারো একার হতে পারে ন। কোচ, অধিনায়ক, সহ-অধিনায়ক, সবারই মতামত থাকে এতে। আগের টেস্টের চিত্র দুই-একটা হয়ত ভিন্ন ছিল, কিন্তু এই টেস্টে আমাদের চিন্তা পরিষ্কার ছিল। আমরা সবাই মিলে সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম যে টসে জিতলে বোলিং নিব। অধিনায়ক যে-ই- হোক, দিনশেষে আমরা সবাই তো মানুষ। ভুল হতেই পারে। মুশফিক যেহেতু অধিনায়ক, তার ঘাড়ে দোষ চাপানো সহজ।’

এর আগে দ্বিতীয় টেস্টের প্রথম দিন শেষে সংবাদ সম্মেলনে মুশফিক বলেছিলেন, ‘কোচরা চেয়েছেন আমি যেন বাইরে বাইরে ফিল্ডিং করি। কারণ, আমি নাকি ফিল্ডার হিসেবে ভাল না। আমি সামনে থাকলে নাকি রান হয়ে যায়। বা আমার হাতে ক্যাচ-ট্যাচ আসলে নাকি (ধরার) চান্স থাকে না। টিম ম্যানেজমেন্ট যেটা বলবে, সেটা তো আমাকে করতে হবে।’

এমন মন্তব্যের পর গুঞ্জন উঠেছিল অধিনায়কত্ব হারাচ্ছেন মুশফিক। কিন্তু নিজ মুখেই মুশফিক বলে দেন, দলনেতার চেয়ার ছাড়বেন না। তবে নেতৃত্ব নিয়ে সিদ্ধান্ত বোর্ডের ওপর ছেড়েছেন মুশফিক। ‘আমি কেন সরে যাব? এটা তো ব্যক্তিগত কোনো খেলা না, দলীয় খেলা। অবশ্যই অধিনায়ক হিসেবে সব ব্যর্থতায় দায় আমার দিকেই আসবে। আমি সেটা নিচ্ছিও। দেশকে নেতৃত্ব দেওয়া আমার জন্য অনেক সম্মানের। আমি গর্বিত। এটা হবে বোর্ডের সিদ্ধান্ত। কারণ, তারাই আমাকে এনেছে। আমাকে সরানো হবে কি না এই সিদ্ধান্তের ভার বোর্ডের ওপর।’

মুশফিকের মন্তব্যের কঠোর সমালোচনা করেছেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। একদিন আগে রাজধানীর তেজগাঁওয়ে সংবাদ মাধ্যমকে পাপন বলেন, ‘সে (মুশফিক) কোথায় ফিল্ডিং করবে সেই সিদ্ধান্ত টিম ম্যানেজমেন্টের ছিল না। সিদ্ধান্তটি ছিল তার ব্যক্তিগত। কেউ চাপিয়ে দেয়নি। তার কোনো অস্বস্তি বা সমস্যা আছে বোধহয়। সেটা হতে পারে কোচের সাথে, হতে পারে টিম ম্যানেজমেন্টের সাথে। দেশে আসার পর সমস্যার সমাধান হবে।’

‘সে যেসব মন্তব্য করছে সেটা দেশের ক্রিকেটের ভাবমূর্তি নষ্ট করছে। টস নিয়ে কোনো অধিনায়ক সংবাদ মাধ্যমে এ ধরনের কথা বলতে পারে না। এটা দলের জন্য ভাল হচ্ছে না। বাংলাদেশের বডি ল্যাংগুয়েজ দেখে মনে হয়নি তারা জেতার জন্য মাঠে নেমেছে। এগুলো মুশফিকের ব্যক্তিগত ব্যাপার।’ মন্তব্য পাপনের।

উল্লেখ্য, প্রথম টেস্ট ৩৩৩ রানে হারের পর আজ দ্বিতীয় টেস্টে দক্ষিণ আফ্রিকার কাছে ইনিংস এবং ২৫৪ রানে পরাজিত হয়েছে বাংলাদেশ।

১৫ অক্টোবর কিম্বার্লিতে সিরিজের প্রথম ওয়ানডে। ১৮ অক্টোবর পার্লে দ্বিতীয় ওয়ানডে। ইস্ট লন্ডনে ২২ অক্টোবর তৃতীয় ওয়ানডেতে মুখোমুখি হবে দু’দল। ব্লুমফন্টেইনে প্রথম টি-টোয়েন্টি অনুষ্ঠিত হবে ২৬ অক্টোবর। পচেফ্স্ট্রুমে দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টি হবে ২৯ অক্টোবর।

ওয়ানডে সিরিজের ম্যাচগুলো শুরু হবে বাংলাদেশ সময় দুপুর ২টা থেকে। প্রথম টি-টোয়েন্টি ম্যাচ শুরু হবে বাংলাদেশ সময় রাত ১০টায়। আর দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টি ম্যাচ শুরু হবে বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যা ৬.৩০টায়।