বিয়ানীবাজারের প্রত্যেক গ্রামে শতভাগ বিদ্যুৎ পৌঁছাবে ৩০ অক্টোবরের মধ্যে

জুনেদ ইকবাল ::

সরকারি সিদ্ধান্ত অনুযায়ী বিয়ানীবাজার উপজেলার প্রত্যেক গ্রামে আগামী ৩০ অক্টোবরের মধ্যে বিদ্যুৎ পৌঁছে দিতে পল্লীবিদ্যুতকে নির্দেশ প্রদান করা হয়েছে। উপজেলাকে শতভাগ বিদ্যুতের আওতায় নিয়ে আসতে স্থানীয় পল্লীবিদ্যুৎ অফিস ঠিকাদার নিয়োগ করেছে। উপজেলাকে শতভাগ বিদ্যুতের আওতায় নিয়ে আসতে সাম্প্রতিক বন্যা ও দুর্যোগকে প্রতিবন্দকতা সৃষ্টি করছে বলে জানিয়েছেন পল্লীবিদ্যুতের দায়িত্বশীলরা।

এ দিকে অভিযোগ উঠেছে গ্রামের লোকজনকে ভুল তথ্য দিয়ে কিছু অসাধু ব্যক্তি বিদ্যুৎ সংযোগের নামে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। তিলপাড়া ইউনিয়নের একটি গ্রামের এরকম চাঁদা তোলার বিষয়টি জানিয়ে পল্লীবিদ্যুতের দায়িত্বশীলদের কাছে অভিযোগ দিয়েছেন ইউনিয়ন চেয়ারম্যান মাহবুবুর রহমান।

কারো প্ররোচনায় পড়ে বিদ্যুৎ সংযোগ পেতে টাকা না দেয়ার জন্য মাইক যোগে প্রচারণা চালিয়েছে বিয়ানীবাজার পল্লীবিদ্যুৎ জোনাল অফিস। আজ দুপুরে পৌরশহরে এ প্রচারণা চালানো হয়। একই সাথে সম্পূর্ণ বিনা টাকায় প্রত্যেক গ্রামের প্রতিটি বাড়িতে বিদ্যুৎ সংযোগ প্রদান করা হবে জানায় পল্লীবিদ্যুৎ।

বিয়ানীবাজার পল্লীবিদ্যুৎ পরিচালক শফিউর রহমান বলেন, কিছু অসাধু ব্যক্তিদের কারণে নিরিহ মানুষজন হয়রানি শিকার হচ্ছেন। বিদ্যুৎ পাওয়ার লোভ দেখিয়ে তারা মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নেয়ার পায়তারা করছে। আমরা এলাকাবাসীকে সচেতন হওয়ার আহবান করছি। বিদ্যুৎ সংযোগ পেতে কাউকে টাকা দিতে হবে না। এটা সম্পূর্ণ বিনা টাকায় প্রত্যেক বাড়িতে পৌছানো হবে।

পরিচালক শফিউর রহমান বলেন, বিদ্যুৎ সংযোগ পেতে টাকা লাগবে জানিয়ে গ্রামে গ্রামে চাঁদা তোলার অভিযোগ আমাদের কাছে এসেছে। তিনি বলেন, সরকারের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী কোন ধরনের বিদ্যুৎ সংযোগে টাকা লাগবে না। যেসব এলাকায় নতুন বিদ্যুৎ সংযোগের কাজ হচ্ছে- সেসব এলাকার মানুষজনকে সচেতন হতে হবে। কোন প্রভাবশালী ব্যক্তি এরকম কারো মাধ্যমে প্রভাবিত হয়ে টাকা না দিতে আহবান জানাচ্ছি। কারণ এই সুযোগে প্রতারকচক্র টাকা হাতিয়ে নেয়ার মতো অশুভ তৎপরতা লিপ্ত রয়েছে। এসব বিষয়ে পল্লীবিদ্যুৎ আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের প্রক্রিয়া চালাচ্ছে।