‘মেসি দেখিয়ে দিয়েছে, কেন সে বিশ্বসেরা’

ক্রীড়া ডেস্ক ::

‘মেসি দেখিয়ে দিয়েছে, কেন সে বিশ্বসেরা। বিশ্বের সেরা ফুটবলারটি হচ্ছেন মেসি। এটা সৌভাগ্য যে সে আর্জেন্টিনার। বিশ্বকাপ কোনোভাবেই মেসি ছাড়া অনুষ্ঠিত হতে পারে না। এটাও তার মাথায় ছিল। একের পর এক চাপের কারণে এখন আমাদের অনেক শক্তি। বিশ্বকাপে খেলার যোগ্যতা অর্জন করে এখন আমরা আরও শক্তিশালী। বিশ্বকাপেও সেটা দেখা যাবে।’ বিশ্বকাপ নিশ্চিত করে এমন হুঙ্কারই ছাড়লেন আর্জেন্টিনার কোচ হোর্হে সাম্পাওলি।

আজ বাংলাদেশ সময় ভোরে লিওনেল মেসির হ্যাট্রটিকে ইকুয়েডরকে ৩-১ গোলে বিধ্বস্ত করেছে আর্জেন্টিনা। ব্রাজিলের কাছে চিলি পরাজিত হওয়ায় আর কলম্বিয়া-পেরু ড্র করায় তৃতীয় হয়ে সরাসরিই ২০১৮ সালের বিশ্বকাপে পা রাখল মেসি-ডি মারিয়ারা। বাঁ পায়ের নিখুঁত কারুকাজ দিয়েই নিজ দেশের জয়ের মালা সাজিয়েছেন পাঁচবারের বর্ষসেরা ফুটবলার।

ম্যাচের শুরুতেই গোল খেয়ে বসে আর্জেন্টিনা। কোটি সমর্থকের দিলে চোট দিয়ে আর্জেন্টাইনদের জালে প্রথমবার বল ঠেলে দেন ইকুয়েডরের রোমারিও ইবারা। বক্সের ঠিক মাঝখান থেকে আসা রবের্তোর হেড বাঁ পায়ের শটে আর্জেন্টিনার জালে বল জড়ান রোমারিও।

ব্যবধান মিইয়ে যায় এর ১১ মিনিট পর। বক্সের খানিকটা আগে থেকে ডি মারিয়ার বাড়ানো বল বাঁ পায়ের আলতো শটে ফাঁকি দেয় ইকুয়েডরের গোলরক্ষককে।

২০তম মিনিট বক্সের অনেকটা বাইরে থেকে মেসিকে বল দেন ডি মারিয়া। সামনে গোলরক্ষক। পাশে তিনজন। মেসিও ব্যবহার করলেন তার জাদুকরী বাঁ পা। গোলবারের কোনা দিয়ে তুলে মারেন। গোলরক্ষক মাটিকামড়ানো শট ভেবে ডাইভ দিতে চেয়েছিলেন। ততক্ষণে বল জালের সঙ্গে জড়িয়ে গেল।

৬২তম মিনিটে মাঝ মাঠের একটু উপর থেকে পেরেজ বল দেন। এবার একটু দূর থেকে শট নেন। প্রায় ৪০ গজ হবে। ভুল করেননি লিও। রক্ষণকে বোকা বানিয়ে তাদের মাথার উপর দিয়ে বল পাঠিয়ে দিলেন জালে। চেয়ে চেয়ে দেখা ছাড়া কিছুই করতে পারেননি ইকুয়েডর গোলরক্ষক।