আপন জুয়েলার্সের মালিক দিলদার কারাগারে

শুল্ক ফাঁকির মামলায় একটি মামলায় আপন জুয়েলার্সের মালিক দিলদার আহমেদের জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন আদালত। মঙ্গলবার বিকাল তিনটায় ঢাকা মুখ্য মহানগর হাকিম আদালত এই আদেশ দেন।

এর আগে দুপুরের দিকে আদালতে আত্মসমর্পণ করে পাঁচ মামলায় আইনজীবীদের মাধ্যমে জামিন আবেদন করেন আপন জুয়েলার্সের তিন মালিক দিলদার আহমেদ, তার দুই ভাই গুলজার আহমেদ ও আজাদ আহমেদ।

এর মধ্যে উত্তরা পূর্ব থানায় করা একটি মামলার শুনানি শেষে বিচারক দিলদার আহমেদের জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। এখন বাকি চার মামলার শুনানি চলছে।

বনানীর আলোচিত দ্য রেইন ট্রি হোটেলে বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া দুই তরুণীতে জন্মদিনের পার্টিতে ডেকে নিয়ে ধর্ষণ করেন আপন জুয়েলার্সের অন্যতম মালিক দিলদার হোসেনের ছেলে সাফাত ও তার সহযোগীরা। ওই ঘটনার পরই রাজধানীতে আপন জুয়েলার্সের পাঁচটি শোরুম থেকে প্রায় ১৫ মণ স্বর্ণ ও হীরার অলঙ্কার জব্দ করা হয়। পরে এ সব অলঙ্কার বাংলাদেশ ব্যাংকে জমা দেয়া হয়।

গত ১২ আগস্ট চোরাচালানের মাধ্যমে শুল্ক ফাঁকি দিয়ে আনা এসব স্বর্ণ ও হীরা জব্দের ঘটনায় ওইসব মূল্যবান ধাতু কর নথিতে অপ্রদর্শিত ও গোপন রাখার দায়ে আপন জুয়েলার্সের মালিক ওই তিন ভাইয়ের বিরুদ্ধে পাঁচটি মামলা করে শুল্ক গোয়েন্দা।

শুল্ক গোয়েন্দার পাঁচ সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তা এম আর জামান বাঁধন, বিজয় কুমার রায়, মো. শাহরিয়ার মাহমুদ, মোহাম্মদ জাকির হোসেন এবং মো. আরিফুল ইসলাম বাদী হয়ে মামলাগুলো করেন। এসব মামলায় গত ২৩ আগস্ট হাইকোর্ট থেকে চার সপ্তাহের জামিন নেন আসামিরা। এরপর তারা নিম্ন আদালতে জামিননামাও দাখিল করেন।

হাইকোর্টের জামিনের মেয়াদ শেষে হলেও নিম্ন আদালতে হাজির না হওয়ায় গত ২২ ও ২৩ অক্টোবর তিনটি মামলায় তাদের জামিন বাতিল করে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন আদালত।