গোলাপগঞ্জে আওয়ামীলীগ নেতাকে হত্যা মামলায় আসামী করার প্রতিবাদে সভা

গোলাপগঞ্জ প্রতিনিধি ::

সিলেটের গোলাপগঞ্জ উপজেলায় ছোট ভাইয়ের হাতে বড় ভাই খুনের ঘটনায় একই ইউনিয়নের আওয়ামীলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ও সিলেট জেলা বাস মালিক সমিতির সিনিয়র সহ-সভাপতি আব্দুল মান্নান (৫০) কে প্রতিহিংসা মুলকভাবে আসামী করায় ফুঁসে উঠছে এলাকাবাসী। মান্নান চৌঘরী লম্বাহাটি গ্রামের মৃত আব্দুল আজিজের ছেলে ।

এই ঘটনায় স্থানীয় এলাকাবাসীর উদ্যোগে সোমবার রাত সাড়ে ৭টায় স্থানীয় চৌঘরী বাজারে সর্বদলীয় প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে । মাসুম আহমদ শাহজাহান ও ফরহাদ মাহমুদের যৌথ পরিচালনায় প্রতিবাদ সভায় সভাপতিত্ব করেন উপজেলা কমিউিনিটি পুলিশের সভাপতি আব্দুল ওদুদ । সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন গোলাপগঞ্জ পৌরসভার মেয়র সিরাজুল জব্বার চৌধুরী, গোলাপগঞ্জ সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান বিএনপি নেতা আশফাক আহমদ চৌধুরী, সাবেক চেয়ারম্যান লুৎফুর রহমান, ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি আব্দুল জলিল সেলিম, আব্দুল মালিক মাস্টার, নিরাপদ সড়ক চাই (নিসচা) গোলাপগঞ্জ উপজেলা সভাপতি ইলিয়াছ বিন রিয়াছত, গোলাপগঞ্জ বাজার বণিক সমিতির সাধারন সম্পাদক আব্দুল আহাদ, আওয়ামীলীগ নেতা অজিউর রহমান ছানা। সভায় বক্তারা বলেন বাদী পক্ষ যতই ক্ষমতাশালী হোকনা কেন কোন অবস্থাতেই নিরীহ ব্যাক্তিকে হয়রানী করতে দেওয়া হবেনা। অভিলম্বে মামলা থেকে আওয়ামীলীগ নেতা আব্দুল মান্নানকে অব্যাহতি না দিলে কঠোর কর্মসূচী দেওয়া হবে। ঘটনা সূত্রে জানা যায় , গত ৫ নভেম্বর রোববার রাতে সদর ইউনিয়নের গোয়াসপুর গ্রামের মকবুল আলীর বড় ছেলে শিবুল আহমদের সাথে তার ছোট ভাই রিপনের কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে রিপন উত্তেজিত হয়ে শিবুলকে ধারালো দা দিয়ে গলায় কোপ দিলে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। এসময় শিবুলের স্ত্রী আলিফা বেগম (২৩) স্বামীকে বাঁচাতে এগিয়ে আসলে ঘাতক রিপন তাকেও আঘাত করলে স্থানীয়রা তাকে আশংকাজনক অবস্থায় সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তী করেন। এ ঘটনার পর ৭ নভেম্বর মঙ্গলবার আলিফা বেগম বাদি হয়ে দেবর রিপন আহমদকে প্রধান আসামী করে ৫ জনের বিরুদ্ধে গোলাপগঞ্জ মডেল থানায় একটি হত্যা মামলা (মামলা নং ৫/১৭) দায়ের করেন। নিহত শিবুলের বাড়ী থেকে প্রায় তিন কিলোমিটার দূরে বাড়ী হওয়া সত্ত্বেও এই মামলায় আব্দুল মান্নান কে আসামী করা হয়। আব্দুল মান্নান অভিযোগ করেন “মামলার বাদী আলিফা বেগম সিলেটের দক্ষিন সুরমা উপজেলার কুচাই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবুল কালামের প্রতিবেশী ও আত্মীয়। সিলেট বাস স্ট্যান্ড নিয়ে বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষ আবুল কালাম ও মটর শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি সেলিম আহমদ ফলিকের প্ররোচনায় আলিফা বেগম আসামী করেছেন।”
প্রদিবাদ সভায় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন ডা: আলা উদ্দিন, জিয়া উদ্দিন , মাওলানা আব্দুল হক , আইনুল ইসলাম রেকল , আব্দুর রাজ্জাক, প্রমুখ ।