ছয় মুসলিম দেশের ওপর ট্রাম্পের ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা অনুমোদন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক,

যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশের ক্ষেত্রে আট দেশের নাগরিকদের যে ভ্রমণ-নিষেধাজ্ঞা দিয়েছিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প, তার মধ্যে মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ ছয়টি দেশের নাগরিকদের ওপর ট্রাম্প প্রশাসনের জারি করা নিষেধাজ্ঞাকে অনুমোদন দিতে সম্মত হয়েছে দেশটির সুপ্রিম কোর্ট। এজন্য নিম্ন আদালত থেকে এ বিষয়ে আইনি বৈধতা আসার শর্ত দেয়া হয়েছে। খবর বিবিসি বাংলার।

দেশগুলি হল ইরান, ইয়েমেন, লিবিয়া, সোমালিয়া, চাদ এবং সিরিয়া।

আট দেশের মধ্যে উত্তর কোরিয়া এবং ভেনিজুয়েলার ওপর জারি করা ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা নিম্ন আদালত আগেই অনুমোদন দিয়েছে। নিরাপত্তা নিয়ে বিশ্বব্যাপী আলোচনা-পর্যালোচনার উপর ভিত্তি করে গত সেপ্টেম্বরে হোয়াইট হাউজ এই ছয় দেশের নাগরিকদের দেশটিতে ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছিল।

আপিল বিভাগের নয়জন বিচারকের মধ্যে সাতজন এ বিষয়ে একমত হয়েছেন। একমত হওয়া বিচারকরা মনে করেন ট্রাম্প প্রশাসন ছয়টি সংখ্যাগরিষ্ট মুসলিম দেশের ওপর যুক্তরাষ্ট্রে ভ্রমণে সর্বশেষ যে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছিলেন, তা বহাল থাকবে। এজন্য নিম্ন আদালতের দেয়া নির্দেশনার আইনি সুরাহা হয়ে আসতে হবে।

বিষয়টির বৈধতা নিয়ে এই সপ্তাহেই সানফ্রানসিসকো, ক্যালিফোর্নিয়া, রিচমন্ড এবং ভার্জিনিয়ার ফেডারেল কোর্টে শুনানি হবে।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব গ্রহণের পরই সাতটি মুসলিম প্রধান দেশের ওপর ৯০ দিনের ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা জারি করে ট্রাম্প প্রশাসন। সেই সাথে শরণার্থীদের প্রবেশেও বাধা সৃষ্টি করে নির্বাহী আদেশ জারি করা হয়। তাৎক্ষণিকভাবেই এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদ হয় এবং নিম্ন আদালত থেকে তা আইনি বাধার মুখে পরে। এই নিষেধাজ্ঞার ফলে সবচেয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েন যুক্তরাষ্ট্রে আসা মুসলিম প্রধান দেশের শিক্ষার্থীরা।

নির্বাহী আদেশটি দুই দফা পরিবর্তনের পর সেপ্টেম্বরে উত্তর কোরিয়া ও ভেনিজুয়েলার ওপর একইরকম নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয় হোয়াইট হাউজ থেকে। সাম্প্রতিক সময়ে নানা বিষয়ে ট্রাম্পের বিতর্কিত কার্যকলাপের মধ্যে আপিল বিভাগের এই রায়কে তার জন্যে এক ধরনের বিজয় বলেই মনে করা হচ্ছে।

বিভিন্ন গণমাধ্যমের খবর ও বিশ্লেষণে বলা হচ্ছে, সুপ্রিম কোটের অবস্থান পরিবর্তন ট্রাম্প প্রশাসনের একটি বড় আইনি বিজয়ের সমতুল্য। কেননা, আগে সংবিধান ও যুক্তরাষ্ট্রের মূল্যবোধের পরিপন্থী বলে অঙ্গরাজ্য পর্যায়ের আদালতগুলো এই ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞার নির্দেশনা স্থগিত করেছিল।