১৭ মার্চ স্কুলে উপস্থিতি বাধ্যতামূলক

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মদিন ও জাতীয় শিশু দিবসে (১৭ মার্চ) দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।

মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের এক চিঠির পরিপ্রেক্ষিতে গত ৭ মার্চ মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ দেশের সকল বিভাগীয় কমিশনার ও জেলা প্রশাসকদের কাছে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি নিশ্চিত করার এ নির্দেশনা পাঠিয়েছে।

১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর থেকে বঙ্গবন্ধুর জন্মদিনকে জাতীয় শিশু দিবস হিসেবে পালন করা শুরু হয়। এই দিনটিকে রাষ্ট্রীয় নানা আনুষ্ঠানিকতাও থাকে।

এই দিনে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ক্লাস না হলেও বাঙালির স্বাধীকার আন্দোলন, মুক্তিযুদ্ধ, গণহত্যা ও বঙ্গবন্ধুর জীবনী নিয়ে নানা উপস্থাপনা থাকে। এগুলো শিশুদেরকে ইতিহাসের প্রতি আগ্রহী করে দেশপ্রেমিক হিসেবে গড়ে তুলবে বলে বিশ্বাস করে সরকার।

মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের চিঠির বরাত দিয়ে নির্দেশনায় বলা হয়েছে, ‘যথাযথ মর্যাদায় আগামী ১৭ মার্চ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৮তম জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস-২০১৮ উদযাপিত হবে। দিবসে দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বাধ্যতামূলকভাবে শিক্ষক ও ছাত্র-ছাত্রীদের উপস্থিতি নিশ্চিত করার জন্য মন্ত্রিপরিষদ বিভাগকে অনুরোধ জানানো হয়েছে।’

‘যথাযোগ্য মর্যাদায় ও আনন্দমুখর পরিবেশে দিবসটি উদযাপনের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে বিভাগীয় কমিশনার ও জেলা প্রশাসকদের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।’