শেষ সময়ে রোনালদোর গোলে সেমিতে রিয়াল

চ্যাম্পিয়ন্স লিগের কোয়ার্টার ফাইনালের ফিরতি লেগে বুধবার শেষ মুহূর্তে ক্রিস্তিয়ানো রোনালদোর গোলে রক্ষা পেয়েছে রিয়াল মাদ্রিদ। নির্ধারিত সময়ে ৩-০ গোলে ইউভেন্তুস এগিয়ে গেলেও অতিরিক্ত সময়ে পেনাল্টি থেকে গোল করে সেমিফাইনাল নিশ্চত করে জিনেদিন জিদানের শিষ্যরা।

গতকাল রিয়ালের বিপক্ষে ৩-১ গোলে জয় পায় ইউভেন্তুস। কিন্তু দুই লেগ মিলিয়ে ৪-৩ গোলের অগ্রগামিতায় সেমির টিকিট পায় রোনালদোরা।

ইউরোপ সেরার মঞ্চ চ্যাম্পিয়ন্স লিগের সেমিফাইনালে এই নিয়ে টানা আটবার উঠলো রিয়াল মাদ্রিদ। তাছাড়া রেকর্ড গড়া সর্বোচ্চ ১২ বারের চ্যাম্পিয়ন হয় তারা।

সান্তিয়াগো বের্নাবেউয়ে ইতালির ক্লাবটি দারুণ শুরু করে। ম্যাচ শুরুর দুই মিনিটের মাথায়ই রিয়ালের জালে বল পাঠিয়ে এগিয়ে যায় অতিথিরা। খেদিরার থেকে ক্রস পেয়ে হেডে গোলটি করেন মারিও মানজুকিচ।

তার ছয় মিনিট পরে আবারও বিপদে পড়ে স্বাগতিকরা। হেসুস ভালেহো ও রাফায়েলের ফাঁক পেয়ে শট নেন কস্তা। তার শট ঝাঁপিয়ে পড়ে ঠেকান কেইলর নাভাস। এরপর বল পেয়ে হিগুয়াইন পাল্টা শট নিলেও তা গোল পোস্টে বাধা পেয়ে ব্যর্থ হয়।

রোনালদোরা এদিন নিজেদের মাঠে শুরু থেকে বেশ ছন্দহীন ছিল। ম্যাচের ৩৭ তম মিনিটে আরো বড় ধাক্কা খায় তারা। মানজুকিচের তার দ্বিতীয় গোলে ব্যবধান দ্বিগুণ করে ফেলেন। এতে আরো চাপে পড়ে যায় রিয়াল।

প্রথমার্ধের চাপ সামলিয়ে দ্বিতীয়ার্ধে ভালো শুরু করলেও বেশ একটা সুযোগ করতে পারেনি রিয়াল। দ্বিতীয়ার্ধের ৬০তম মিনিটে গোলরক্ষকের ভুলে তৃতীয় গোল খেয়ে বসে রোনালদোরা। যাতে স্কোর লাইন দাঁড়ায় ৩-০।

এরপরেই যোগ করা সময়ে ম্যাচের চিত্র পাল্টে দেন রিয়াল সেরা তারকা রোনালদো। অতিরিক্ত সময়ের সপ্তম মিনিটেই তার জাদুতে কাঙ্ক্ষিত গোলের দেখা রিয়াল মাদ্রিদ। ডি-বক্সের কাছে থেকে স্পট কিকে গোলটি করেন তিনি। ইউরোপ সেরার টুর্নামেন্টে এই নিয়ে টানা ১১ ম্যাচে গোল করলেন পর্তুগিজ এই ফরোয়ার্ড। আর চলতি আসরে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে করেন মোট ১৫টি গোল।