তাপদাহে অতিষ্ঠ জনজীবন

স্টাফ রিপোর্টার ::

তীব্র তাপদাহের কারণে বিয়ানীবাজার পৌরশহরের ব্যস্ততম প্রধান সড়ক জনশূন্য।

প্রচণ্ড তাপদাহে জনদুর্ভোগ আবারও চরমে পৌঁছেছে। রোদ্রের প্রখর তাপে যেন পুড়ছে। আষাঢের এই উত্তাপ যেন থামছেই না। জনজীবন এখন দুর্বিষহ হয়ে উঠেছে। আকাশ মাঝে মধ্যে একটু গুড়গুড় করলেও বৃষ্টির দেখা পাওয়া যাচ্ছে না। তাপের তীব্রতায় অসুস্থ হয়ে পড়ছে অনেকে। সিলেট বিভাগসহ বিয়ানীবাজার উপজেলায় দুই দিন ধরে বিরাজ করছে উচ্চ তাপমাত্রা। এতে প্রচণ্ড গরমে অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে জনজীবন। আবহাওয়াবিদরাও কোনো সুখবর দিতে পারছেন না।

এ অবস্থায় দেখা দিয়েছে বিশুদ্ধ পানির সংকট। বিশেষ করে কৃষক, দিনমজুরসহ শ্রমজীবী মানুষের জীবন দুর্বিষহ হয়ে পড়েছে। একটুখানি শীতল ছোঁয়া পেতে তারা ছুটছে বিভিন্ন জলাশয়ে। ভ্যাপসা গরমে, ঘামে অসহনীয় অবস্থা বিরাজ করছে সর্বত্র। প্রচণ্ড গরমে প্রতিদিনই অসুস্থ হয়ে পড়ছেন অনেক মানুষ। অসুস্থ হয়ে পড়ছে স্কুল-কলেজের কোমলমতি শিক্ষার্থীরা। এ অবস্থায় সবাইকে পানি জাতীয় খাবার খাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন চিকিৎসকরা। গরমে অতিষ্ঠ কর্মজীবী মানুষ রাস্তার পাশে অবস্থিত দোকান থেকে দূষিত পানি ও শরবত খেয়েও নানা রকম রোগব্যাধিতে আক্রান্ত হচ্ছে। বিশেষ করে শিশু কিশোররা ডায়রিয়া ও পেটের পীড়াসহ নানা রোগে আক্রান্ত হচ্ছে।

 

বিয়ানীবাজার  উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা (টিএইচও) মোয়াজ্জেম আলী খান চৌধূরী বিয়ানীবাজারকণ্ঠকে বলেন,  প্রচুর পরিমাণে পানি, শাক-সবজি, ফল-মূল খেতে হবে। রোদে অবশ্যই ছাতা নিয়ে বের হতে হবে। তবে গরমে কেউ খাবার স্যালাইন খাবেন না। কারণ খাবার স্যালাইন গরমের জন্য নয়, ডাইরিয়ার জন্য। নিয়ম না জেনে অনেকে রাস্তার বিভিন্ন খোলা পানীয় জাতীয় শরবত খেয়ে আমাশয়, পেটের পীড়া, টাইফয়েড, জন্ডিসসহ নানা রোগে আক্রান্ত হচ্ছে মানুষজন। এ অবস্থায় বিশুদ্ধ পানির সরবরাহ, রোগাক্রান্তদের স্যালাইন সরবরাহসহ প্রয়োজনীয় চিকিৎসার ব্যবস্থা নিশ্চিত করা খুবই জরুরি। বিশেষ করে স্কুল-কলেজগামী শিক্ষার্থীদের জন্য ছাতা ব্যবহার, প্রয়েজনীয় পানি পানের ব্যবস্থা ও পর্যাপ্ত খোলা পরিবেশে আলো বাতাসের সঙ্গে রেখে ক্লাস করানো এবং যথেষ্ট বিশ্রামের দরকার রয়েছে।
ভ্যাপসা গরমে ও তাপদহে খেটে খাওয়া মানুষসহ সাধারণ মানুষের কষ্ট বেড়ে যাচ্ছে। তাপ প্রবাহের কারণে বিয়ানীবাজারের অনেক এলাকায় ডায়রিয়ার প্রকোপ বৃদ্ধি পেয়েছে। অনেক স্থানে পরিবারের সবাই একসঙ্গে গরমজনিত অসুস্ততায় ভুগছে।