স্কুল ছাত্রীকে পাশবিক নির্যাতনকারি মিনহাজ গ্রেফতার

বিয়ানীবাজার উপজেলার আঙ্গুরা পালকোনা গ্রামে স্কুল ছাত্রীকে পাশবিক নির্যাতনকারি মিনহাজ হোসেনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৯টায় সাড়াশি অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

বিয়ানীবাজার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (তদন্ত) জাহিদুল হক বলেন, মিনহাজকে মাথিউরা হতে গ্রেফতার করা হয়েছে। বুধবার তাকে আদালতে প্রেরণ করা হবে।

জানা যায়, অভিযুক্ত মিনহাজ হোসেন কুড়ারবাজার ইউনিয়নের আঙ্গুরা গ্রামের মৃত আব্দুল খালিকের পুত্র। গত ১৪ আগষ্ট সকালে ওই স্কুল ছাত্রীকে মিনহাজ তার নিজ ঘরে নিয়ে সতীত্বহরণ করে। তখন ওই স্কুল ছাত্রীর পরিবারের সদস্যরা তাকে খুজতে থাকেন। পরে স্কুল ছাত্রীর বড় বোন মিনহাজের ঘর থেকে কিছুটা এলোমেলো অবস্থায় বেরিয়ে আসতে দেখে চিৎকার দেন। এরই ফাকে মিনহাজ তার নিজ ঘর থেকে পালিয়ে যায়।

পরে ওই স্কুল ছাত্রীকে নিয়ে তার পরিবারের সদস্যরা বিয়ানীবাজার সরকারি হাসপাতালে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ওসিসিতে প্রেরণ করেন।

পরে ন্যাক্কারজনক এ ঘটনাটি জানাজানি হলে মানুষের মধ্যে তীব্র প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়। এরইমধ্যে গ্রাম্য মোড়লরা তা আপোষ মীমাংসার চেষ্টা করেন। কিন্তু গণমাধ্যম খবর প্রকাশ হলে তাদের সকল অপচেষ্টা ব্যর্থ হয়ে যায়।

অবশেষে ঘটনার ৩ দিন পর গত শনিবার (১৭ আগস্ট) রাতে নির্যাতিতার বড় ভাই আমিন হোসেন বাদি হয়ে মিনহাজ হোসেনকে (২৩) আসামী করে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে থানায় এই মামলা দায়ের করেন। এর দু’দিন পর পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে।