বড়লেখা সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে বাংলাদেশি নিহত

বিয়ানীবাজারকণ্ঠ ডেস্ক ::::

বড়লেখা সীমান্তে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর (বিএসএফ) গুলিতে আব্দুর রূপ (৩৭) নামে এক বাংলাদেশি নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। ভারত থেকে অবৈধ পথে মহিষ আনতে গিয়ে বাংলাদেশ-ভারত সীমান্তের উত্তর ডিমাই এলাকায় তিনি বিএসএফের গুলিতে মারা যান।

নিহত আব্দুর রূপ বড়লেখা সদর ইউনিয়নের বিওসি কেছরিগুল (উত্তর) গ্রামের সাজ্জাদ আলীর ছেলে। তিনি তিন সন্তানের জনক। শুক্রবার দিবাগত রাত আনুমানিক ১২ টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

বিএসএফ তার মৃতদেহ ভারতে নিয়েছে গেছে, স্থানীয় সূত্রে এমন তথ্য পাওয়া যায়। মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বড়লেখা সদর ইউনিয়নের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান সিরাজ উদ্দিন।

সীমান্ত এলাকার স্থানীয় বাসিন্দা সূত্রে জানা গেছে, বড়লেখা উপজেলার বোবারতল বিজিবি ক্যাম্পের আওতাধীন সীমান্তের ১৩৮২ নম্বর মেইন পিলারের সাব পিলার ১ এস এলাকায় কাটাতারের বেড়া অতিক্রম করে শুক্রবার দিবাগত রাতে ১০-১৫ জনের বাংলাদেশি গরু ও মহিষ পাচারকারী একটি দল ভারতে অনুপ্রবেশ করে। এ সময় দায়িত্বরত বিএসফের সদস্যরা চোরাকারবারিদের লক্ষ করে গুলি বর্ষণ করে। বিএসএফের গুলিতে আহত অন্যরা পালিয়ে গেলেও ঘটনাস্থলেই মারা যান পাচারকারী দলের সদস্য আব্দুর রূপ। এ সংবাদ লেখার সময় লাশের সুরতহাল শেষে ভারতের করিমগঞ্জ জেলার পাতাইরকান্দি থানায় নিয়ে যাওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

বড়লেখা সদর ইউনিয়নের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান সিরাজ উদ্দিন বলেন, সে আমার ইউনিয়নের বাসিন্দা। শনিবার সকালে তার পরিবারের লোকজন আমার বাড়িতে এসে জানান, সে ভারতে গিয়েছিল। সেখানে গুলি হয়েছে। কিন্তু সে ফেরেনি। পরবর্তী সময় বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে সে গুলিতে মারা গেছে। এরপরে খোঁজ-খবর নিয়ে জানতে পারি সেখানে তার সুরতহাল হয়েছে। লাশ করিমগঞ্জ জেলার পাতাইরকান্দি থানায় নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

বিজিবি ৫২ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল ফয়জুর রহমান পিএসসি বলেন, বড়লেখা সীমান্তের কাঁটাতারের বেড়ার ২০০ গজ ভারতের ভেতরে একজন মারা গেছেন এমন খবর পাওয়া গেছে। তবে তার নাম পরিচয় নিশ্চিত হওয়া যায়নি।