বিয়ানীবাজারে প্রাথমিকে পাশের হার ৯১.৪৫ শতাংশ, ইবতেদায়ীতে ৯৩.৬৮

বিয়ানীবাজারকণ্ঠ.কম ::

বিয়ানীবাজারে প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষায় পাশের হার ৯১.৪৫ শতাংশ। ইবতেদায়ীতে পাশ করেছে শতকরা ৯৩.৬৮ শতাংশ শিক্ষার্থী। পিইসিতে জিপিএ-৫ পেয়েছে ৪৫৫ জন। ইবতেদায়ীতে জিপিএ-৫ পেয়েছে ১৭ জন।

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা যায়, প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষায় (পিইসি) ৯১.৪৫ ভাগ শিক্ষার্থী কৃতকার্য হয়েছে। উপজেলার ১৯৬টি (সরকারি, বেসরকারি ও কেজি স্কুল) শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ৪ হাজার ৭শ’ ৯২ জন শিক্ষার্থী অংশ নেয়। মোট শিক্ষার্থীদের মধ্যে ৩৯০ জন অকৃতকার্য হয়েছে। পাশ করেছে ৪ হাজার ২শ’ ৮১ জন। অনুপস্থিত ছিলো ১২১ জন শিক্ষার্থী। গত বারের তুলনায় এবার জিপিএ-৫ বেড়েছে। গত বছর জিপিএ-৫ পেয়েছিলো উপজেলার ২২৪ জন শিক্ষার্থী। এবার উপজেলার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ৪৫৫ জন শিক্ষার্থী জিপিএ-৫ পেয়েছে। এর মধ্যে ১৭২ জন বালক ও ২৮৩ জন বালিকা জিপিএ-৫ পেয়েছে।

অন্যদিকে, ইবতেদায়ী সমাপনী পরীক্ষায় ৯৩.৬৮ ভাগ শিক্ষার্থী কৃতকার্য হয়েছে। উপজেলার ২১টি ইবতেদায়ি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ৫’শ ২৩জন জন শিক্ষার্থী অংশ নেয়। মোট শিক্ষার্থীদের মধ্যে ৩১ জন অকৃতকার্য হয়েছে। পাশ করেছে ৪শ’ ৬০ জন। অনুপস্থিত ছিলো ৩২ জন শিক্ষার্থী। গত বারের তুলনায় এবার জিপিএ-৫ বেড়েছে। গত বছর জিপিএ-৫ পেয়েছিলো উপজেলার ১২ জন শিক্ষার্থী। এবার উপজেলার বিভিন্ন ইবতেদায়ী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ১৭ জন শিক্ষার্থী জিপিএ-৫ পেয়েছে।

বিয়ানীবাজার উপজেলা সহকারি শিক্ষা কর্মকর্তা আশরাফুল আলম বলেন, প্রাথমিক ও ইবতেদায়ী শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষায় বিয়ানীবাজার উপজেলায় আশানুরূপ ফলাফল হয়েছে। উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা বিভাগ, শিক্ষক, বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদ, শিক্ষক-অভিভাবক পর্ষদসহ সংশ্লিষ্ট সকলের সহযোগিতায় এ ফলাফল করা সম্ভব হয়েছে। তিনি সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি ধন্যবাদ জানান এবং সবার সহযোগিতায় আগামীতে বিয়ানীবাজার উপজেলার ফলাফল আরও ভালো হবে ও প্রাথমিক শিক্ষার গুণগত মান অর্জন সম্ভব হবে বলে আশাবাদ ব্যাক্ত করেন।