বিয়ানীবাজারে নিখোঁজ ব্যবসায়ীর লাশ গুমের চেষ্টা, কঙ্কাল উদ্ধার

স্টাফ রিপোর্টার:

বিয়ানীবাজার থেকে ব্যবসায়ী নিখোঁজের এক বছর পর ওই ব্যক্তির কংকাল উদ্ধার করেছে পুলিশ। ঘটনায় জড়িত সন্দেহে আটক ব্যক্তির দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে মঙ্গলবার বিকেলে একই এলাকার গাছবাড়ি এলাকা থেকে নিখোঁজ ব্যক্তির কংকাল উদ্ধার করা হয়। নিখোঁজ ব্যবসায়ী কামাল হোসেন (৪০) কে খুনের পর লাশ গুম করতে ঘাতকরা একটি পুকুড়পাড়ে গর্ত করে তার লাশ পুঁতে রাখে বলে পুলিশ জানায়।

তবে যে বাড়ির পুকুর পাড় থেকে কংকাল উদ্ধার করা হয় ওই বাড়িটি নিহত কামাল হোসেনের। এখানে তারা কেউ বসবাস করেননা। তার বাড়ি একই ইউনিয়নের আদিনাবাদ গ্রামে।

জানা যায়, ব্যবসায়ী কামাল হোসন নিখোঁজ হওয়ার পর তার পরিবারের পক্ষ থেকে থানায় সাধারণ ডায়রি করা হয়েছিল। তবে তাঁর কোন সন্ধান না পাওয়ায় ব্যবসায়ীর ভাই থানায় নিয়ািমত মামলা করেন। এ মামলার তদন্তে উঠে আসে দোকান কর্মচারি আমির আলী ব্যবসায়ী নিখোঁজ ঘটনায় জড়িত। ঘটনার পর থেকে আমির আলীও পলাতক ছিল।

পুলিশ জানায়, ব্যবসায়ী কামাল হোসেনের নিখোঁজ ঘটনায় রহস্য উদঘাটন করতে সোমবার দোকানের কর্মচারি আমির আলীকে কানাইঘাটের সীমান্তবর্তী এলাকা থেকে আটক করা হয়। তাকে ধরতে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে অভিযান চালায় থানা পুলিশ। দীর্ঘ জিজ্ঞাসাবাদ শেষে তার দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে কংকাল উদ্ধার করা হয়।

চারখাই ইউপি চেয়ারম্যান মাহমুদ আলী বলেন, ব্যবসায়ী কামাল হোসেন বাজারে মুদি দোকান দিতেন। তাকে খুঁেজ পেতে তার পরিবার অনেক চেষ্টা করছিল।

বিয়ানীবাজার থানার ওসি অবনী শংকর কর বলেন, প্রথম আটক আমির আমাদের সন্দেহের তালিকায় ছিল। পুলিশ পরিদর্শক ও মামলার তদন্ত কর্মকর্তা জাহিদুল হক তাকে কানাইঘাটের সীমান্ত এলাকা থেকে আটক করে। এ ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতার করতে পুলিশ কাজ করছে।